June 28, 2017, 7:59 am | ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং,বুধবার, সকাল ৭:৫৯

মানুষ যে কারণে ঘুমের মধ্যে হাঁটে

moon walkঢাকা জার্নাল: সিনেমাতে ঘুমের মধ্যে হাঁটার দৃশ্য দেখে অনেকেই হয়তো হেসে গড়াগড়ি খেয়েছেন। বাস্তব জীবনেও কিন্তু এমন ঘটে। বলতে দ্বিধা নেই, এটি একটি সমস্যাই বটে! এই ঘটনা যাদের বেলায় ঘটে তারা তো বটেই পরিবারের অন্যরাও এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভোগেন। এটি বেশ ঝুঁকিপূর্ণ একটি সমস্যা।

চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় ঘুমের মধ্যে হাঁটাকে বলা হয় ‘সোমনমবুলিজম’ বা ‘নকচামবুলিজম’। আসলে এটা এক ধরনের প্যারাসোমনিয়া। যা ঘুমের মধ্যে জাগ্রত ব্যক্তির ন্যায় বিভিন্ন কর্মকা- করার মাধ্যমে প্রকাশ পায়। ঘুমের মধ্যে হাঁটার বিষয়টি কিন্তু রাতের প্রথমভাগেই হয়। দিনের বেলা দীর্ঘ সময় ধরে ঘুমালেও এমন ঘটতে পারে।

এই সমস্যায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা পর পর কয়েক রাত এমন কী এক রাতে কয়েকবার এই সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। এর সবচেয়ে ক্ষতিকর দিকটি হল, তখন তারা এ বিষয়ে একেবারেই অচেতন থাকেন এবং এটি মারাত্মক বিপদ ডেকে আনতে পারে। ঘুমের মধ্যে চলাফেরা করার প্রবণতা বাচ্চাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। কিশোর বয়সেও অনেকের মধ্যে এটি লক্ষ্য করা যায়। তবে পূর্ণ বয়স্কদের মধ্যে এর ঝুঁকি সবচেয়ে কম।

শিশুরা সাধারণত ঘুমের মধ্যে হেঁটে আলোকোজ্জ্বল জায়গায় কিংবা তাদের বাবা-মায়ের কক্ষের দিকে যায়। কিন্তু কিশোর এবং কিছু কিছু পূর্ণ বয়স্ক ব্যক্তি ঘুমের মধ্যে নানাবিধ কাজ করে থাকে। যেগুলো মাঝে মাঝে অদ্ভুত ও বেশিরভাগ সময়ই মারাত্মক ধরনের হয়। যেমন ঘুম থেকে হঠাৎ উঠে হেঁটে কোনো দিকে চলে যাওয়া। বা এমন কোনো অস্বাভাবিক কাজ শুরু করা যা সাধারণত রাতে করা হয় না। পাশের জনের সঙ্গে কথা বলতে থাকা, ঘরের জিনিসপত্র নাড়া-চাড়া করা, ঘুম থেকে উঠে খাওয়া-দাওয়া করা, এমন কী গাড়ি চালানো পর্যন্ত!

এমন অবস্থায় তাদের জাগানো অনেক কষ্টের কাজ। যে তাদের জাগাতে যায়, তার অনেক  সময় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকে। সে ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে মমতা দিয়ে তাদের অচৈতন্য অবস্থা থেকে জাগাতে হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞান ঘুমের মধ্যে হাঁটার বেশ কিছু কারণ আবিষ্কার করেছে। যেমন-

বংশগত কারণে এটি হতে পারে। যদি বাবা-মা কারো মধ্যে এই অভ্যাস থাকে তাহলে  সন্তানদেরও এটা হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
শরীরে থাইরয়েড হরমোনের আধিক্য হলে।
মাইগ্রেনের সমস্যা থাকলে।
স্ট্রোক করলে।
মস্তিষ্ক প্রদাহজনিত রোগে আক্রান্ত হলে।
মাথায় বড় আঘাত পেলে।
ওএসএ (Obstructive Sleep Apnea) নামক চোখের রোগে ভুগলে।
অতিরিক্ত মানসিক চাপ কিংবা শারীরিক ক্লন্তি থাকলে।
ভ্রমণের ক্লান্তির জন্যও অনেক সময় হয়ে থাকে।
মাদকের প্রতি খুব বেশি আসক্ত থাকলে।
শব্দ বা আলোর জন্য যদি কারো ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে।
অপরিচিত পরিবেশে ঘুমালে।
বাচ্চাদের অতিরিক্ত জ্বর হলে।
ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায়ও এমন হতে পারে।

এই সমস্যা থেকে বাঁচতে হলে সব সময় সতর্ক থাকতে হবে। সতর্ক থাকার ক্ষেত্রে কিছু কিছু বিষয় মেনে চললে ভালো ফল পাওয়া যেতে পারে। যেমন-

ঘরের দরজা-জানালা ভালো করে বন্ধ রাখতে হবে। যাতে খুলে বেরিয়ে যেতে না পারে।
ঘরে কোনো ধারালো ছুরি, ভাঙা কাচের টুকরা কিংবা ধারালো কিছু রাখা যাবে না।
আগুন জ্বালানোর কোনো কিছু রাখা যাবে না।
ঘুমের মধ্যে হাঁটতে গিয়ে ধাক্কা লাগতে পারে এমন কিছু ঘরে রাখা যাবে না।
ঘুমের মধ্যে যাদের হাঁটার অভ্যাস রয়েছে তাদের বিছানা একটু নিচু বানাতে হবে। যাতে হাঁটতে গিয়ে পড়ে গেলে ব্যথা না পায়।
আক্রান্তরা যেন নিয়মিত ঘুমাতে পারে সে ব্যবস্থা করতে হবে।
ঘুমিয়ে গেলে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে কিংবা ঘুম ভেঙে যায় এমন শব্দ বা কাজকর্ম করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
হঠাৎ ঘুমের মধ্যে হাঁটা শুরু করলে তাকে আস্তে আস্তে বিছানায় শুইয়ে দিতে হবে। জোর জবরদস্তি করা যাবে না।
অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।

ঢাকা জার্নাল, ২৫ জানুয়ারি, ২০১৬

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল