শনিবার সকাল ৮টায় ভোট গ্রহণ শুরু

জুলাই ৬, ২০১৩

Gazipur-city-corporation20130705115239ঢাকা জার্নাল: সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন। বৃহস্পতিবারই শেষ হয়েছে প্রচারণা। বৃহস্পতিবার সকাল নয়টা থেকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে ভোটের সরঞ্জামাদি। এখন কেবল অপেক্ষা একটি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। নবগঠিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের (জিসিসি) এ নির্বাচনে শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত চলবে এ নির্বাচনের বিরতিহীন ভোটগ্রহণ।

এরই মধ্যে ভোটগ্রহণের দিন নির্বাচনী এলাকায় সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশন এলাকায় গার্মেন্টসসহ সকল ফ্যাক্টরি বন্ধ থাকবে।

দুটি পৌরসভা ও ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের ৩২৯ দশমিক ৯০ বর্গকিলোমিটার এলাকা নিয়ে গঠিত দেশের ১১তম সিটি করপোরেশন গাজীপুর সিটির ভোটার সংখ্যা ভোটার সংখ্যা ১০ লাখ ২৬ হাজার ৯৩৮ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ২৭ হাজার ৭৭৭ জন ও মহিলা ভোটার ৪ লাখ ৯৯ হাজার ১৬২ জন।

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচনে ৭ জন মেয়র, ১২৮ জন সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর এবং ৪৫৬ জন সাধারণ আসনের কাউন্সিলরসহ মোট ৫৯১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের সাধারণ ওয়ার্ড সংখ্যা ৫৭টি ও ১৯টি রয়েছে সংরক্ষিত (নারী) ওয়ার্ড।

নির্বাচনে ১৮ দলীয় জোট প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নান টেলিভিশন এবং ১৪ দলীয় প্রার্থী আজমত উল্লাহ খান তালা চাবি প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মেয়র পদে ৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম ও নেজামে ইসলাম পার্টির মাওলানা রফিকুল ইসলাম সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। তবে নির্বাচন থেকে সরে গিয়েও জাহাঙ্গীর আলমের আনারস প্রতীক থেকে যাচ্ছে ব্যালটে। নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থীর সংখ্যা ৭ জন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট মোঃ আজমত উল্লাহ খান (দোয়াত-কলম), বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী অধ্যাপক এম এ মান্নান (টেলিভিশন), আমান উল্লাহ (তালা), ডা. নাজিম উদ্দিন আহমেদ (ঘোড়া), মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (আনারস), মোঃ মেজবাহ উদ্দিন সরকার রুবেল (হাঁস) এবং রিনা সুলতানা (প্রজাপতি)।

এবারের নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র ৩৯২টি, যার মধ্যে ২টি অস্থায়ী কেন্দ্র। নির্বাচনে ৩৯২টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৩৫টিই ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটগ্রহণের কাজে প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারসহ ৭ হাজার ২৫৯ জন নির্বাচনী কর্মকর্তা দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তাদের মধ্যে ৩৯২ জন প্রিজাইডিং কর্মকর্তা, ২ হাজার ২৮৯ জন সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ও ৪ হাজার ৫৭৮ জন পোলিং কর্মকর্তা।

নির্বাচন কমিশন বলছে, সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রত্যেক ভোটার যাতে নির্বিঘ্নে ও নিরাপদে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন সে লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে নির্বাচন কমিশন সিটি কর্পোরেশনের ভোটারদের শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দানের জন্য আহ্বান জানিয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীকে নিরপেক্ষ ও দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

ঢাকা জার্নাল, জুলাই ৫, ২০১৩।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.