June 29, 2017, 9:50 pm | ২৯শে জুন, ২০১৭ ইং,বৃহস্পতিবার, রাত ৯:৫০

পুরুষের লোভ ।। তসলিমা নাসরিন

ভারতবর্ষে ইন্ডিয়ান ইন্সটিউট অব টেকনোলজি বিশাল ব্যাপার। আইআইটি-তে চান্স খুব কম ছেলে মেয়েই পায়। সেই আইআইটি’র পিএইচডি স্কলার ২৮ বছর বয়সী প্রখর মেধাবী মঞ্জুলা দেভাক কিছুদিন আগে নিজের গলায় দড়ি দিয়েছে। আইআইটি’র নালন্দা অ্যাপার্টমেন্টেই এই ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

ঘরের দরজা ভেঙে ঢুকেছে পুলিশ, দেখেছে মঞ্জুলার শরীর ঝুলছে সিলিং ফ্যানে। আত্মহত্যা করেছে মেয়ে। হাসিখুশি মেয়েটির হঠাৎ কী হলো যে আত্মহত্যা করবে? করেছে কারণ রিতেশ চরম অশান্তি করছিল। রিতেশ মঞ্জুলার স্বামী। পণ দাবি করছিল। তাকে ২৫ লাখ টাকা দিতে হবে, সে ব্যবসা করবে। ব্যবসা করার টাকা সে নিজে জোগাড় করবে না, তার বাবা কাকা মামা জ্যাঠা বা মা মাসির কাছ থেকে নেবে না, নেবে স্ত্রীর কাছ থেকে, স্ত্রীর বাবা মার কাছ থেকে। পণের টাকা দিয়ে আরাম আয়েশ করার স্বপ্ন প্রায় প্রতিটি পুরুষের।

বাড়ি ঘর ছেড়ে মঞ্জুলার হোস্টেলে এসে উঠেছিল রিতেশ। মঞ্জুলাকে সে আইআইটি’র পড়াশোনা কিছুতেই করতে দেবে না। তাকে নিজের পায়ে দাঁড়াতে দেবে না। বিশাল বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল সে মঞ্জুলার জীবনে। রিতেশ চায় মঞ্জুলার সাফল্য বলতে কিছুই না থাকুক। পণ এবং প্রাণ ঢেলে মঞ্জুলা তাকে একটি ব্যবসা দাঁড় করিয়ে দিক। দিনের পর দিন রিতেশের অত্যাচার সইতে না পেরে মঞ্জুলা শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছে। আমি মঞ্জুলা হলে আত্মহত্যা করতাম না। বিবেকবর্জিত স্বার্থপর লোভী লোকটিকে বাড়ি থেকে বের করে দিতাম, তালাক দিতাম। কেন যে মেয়েরা পরাজিত হয় এসব ছোটলোকদের কাছে।

মঞ্জুলার ফেসবুক দেখে ধারণা করতে পারি, মেয়েটি খুব হাসিখুশি ছিল, ঘুরে বেড়াতে ভালবাসতো, বাইরে স্যুট পরতো, শর্টস পরতো। রক্ষণশীল পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ড্রেস কোড মানেনি। কিন্তু কেন যে পুরুষতান্ত্রিক পণপ্রথার শিকার হতে গেল! তার যে আত্মহত্যা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না, তা তো নয়। মঞ্জুলার জন্য আমার দুঃখ হয়, দুঃখ হয় প্রতিভাময়ী আরও অনেক মেয়ের জন্য, যারা বিসর্জন দেয় নিজের অর্থপূর্ণ অমূল্য জীবন। পুরুষের হাতে নির্যাতিত হতে হতে যাদের আত্মবিশ্বাস বলতে প্রায় কিছুই অবশিষ্ট থাকে না।

আত্মহত্যা করার পর মঞ্জুলার বাবা বলেছিল, ভুল করেছি মেয়েকে আইআইটি-তে পাঠিয়ে, তার চেয়ে টাকাগুলো যদি পণের জন্য জমাতাম, ভালো হতো, মেয়েটা বাঁচতো। রিতেশের মতো এরকম লোভী লোককে কেন বিয়ে করেছিল মঞ্জুলা! মঞ্জুলার বাবা বলেছেন, ‘ওদের রাশিফল চমৎকার মিলেছিল’। এই মুশকিল, শিক্ষিত মানুষ হয়েও রাশিতে বিশ্বাস করেন। যুক্তি জেনেও অযৌক্তিক কীর্তিকলাপ মেনে নেন। বিজ্ঞানের সুযোগসুবিধে সব গ্রহণ করেও অবিজ্ঞানে বিশ্বাস করেন।

পণপ্রথা আজকের নয়। প্রথাটি কয়েক হাজার বছরের পুরনো। পৃথিবীর বহু দেশেই এই প্রথা ছিল, অনেক দেশে এখনও আছে। অবৈধভাবে হলেও আছে। গোটা উপমহাদেশেই এই প্রথা চলছে। আইন করেও, শাস্তি দিয়েও এই প্রথা বন্ধ করা যাচ্ছে না। এই পণের কারণে হাজারো বধূকে হত্যা করা হচ্ছে, হাজারো বধূ অসম্মানিত আর অপমানিত হয়ে আত্মহত্যা করছে।

যতদূর জানি প্রাচীনকাল থেকেই এই অঞ্চলে পণপ্রথার চর্চা চলছে। কিন্তু পুরনোকালের কিছু পর্যটক তাঁদের বইয়ে লিখে গেছেন, ভারতবর্ষে বিয়েতে তাঁরা কাউকে পণ দিতে দেখেননি। জানি না, তখন হয়তো পণপ্রথা এখনকার মতো এত ভয়ঙ্কর ছিল না, অথবা পর্যটকের চোখে পড়েনি পণের আদান প্রদান। প্রাচীন গ্রিসের রাজা আলেক্সান্ডার দ্য গ্রেট ভারতের বিয়েতে পণ দিতে দেখেননি। পারস্য দেশের বুদ্ধিজীবী আল বিরুনি ভারতবর্ষে ১০১৭ সালে এসেছিলেন, ছিলেন ষোলো বছর। তার আত্মজীবনীতেও আছে ভারতের বিয়ের বর্ণনা, যেখানে পণের কোনও চিহ্ন নেই।

চীনকালের যৌতুক একতরফা ছিল না। বধূর তরফ থেকে বরকে দেওয়া হতো, বরের তরফ থেকেও বধূকে দেওয়া হতো। বরের তরফ থেকে বধূর পরিবারে পণ দেওয়ার কারণ ছিল, ওই পরিবারে একজন শ্রমিক কম পড়ে যাওয়ার ক্ষতিপূরণ। আর বধূর পরিবার থেকে বরের পরিবারে যে পণ দেওয়া হতো, সেটি মূলত পিতার সম্পত্তি থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে বধূটির যা পাওয়ার কথা ছিল, তা। তখনকার আইন কন্যাদের উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করতো। এখন এই আধুনিককালের উত্তরাধিকার আইন কন্যাদের বঞ্চিত করে না। পুত্রদের মতোই কন্যারাও বাবা-মায়ের সম্পত্তির ভাগ পায়। উপমহাদেশের প্রতিটি দেশেই আজ পণ বা যৌতুক নিষিদ্ধ। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা পণের চর্চাকে ঠেকাতে পারছে না। মেয়েরা যত নিচে নামে, পণ তত ওপরে ওঠে।

আসলে বলা উচিত, সমাজে মেয়েদের অবস্থানকে যত নিচে নামানো হয়, পণের টাকাকে তত বাড়ানো হয়। এই নামানো বাড়ানোর দড়িটা থাকে পুরুষতন্ত্রের হাতে। ভারতে পণের কারণে বধূনির্যাতন আর বধূহত্যা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। বাংলাদেশেও তাই। বেশির ভাগ বধূহত্যাকে বধূর আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। বেশির ভাগ বধূনির্যাতনকে পরকীয়া সম্পর্কের কারণে বর বধূর মধ্যে ঝগড়া লড়াই হচ্ছে বলে প্রচার করা হয়।

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক হওয়া উচিত ভালোবাসার, বিশ্বাসের। কিন্তু যৌতুক এই সম্পর্ককে নষ্ট করে দিয়েছে। এখন সম্পর্কটা পুরুষের জন্য টাকা পয়সার, স্বার্থপরতার, আর নারীর জন্য বিসর্জনের, বেগার খাটার। ভারতে বধূকে পুড়িয়ে মারা হয়, বাংলাদেশে পুড়িয়ে মারার চল খুব একটা নেই, মারা হয় কুপিয়ে, নয়তো বিষ খাইয়ে। যৌতুকের লোভ যে লোকের, সেই নিকৃষ্ট, স্বার্থপর, ক্ষুদ্র লোককে বিয়ে করা বন্ধ করুক মেয়েরা। ওদের সঙ্গে সংসার করার চেয়ে একা থাকা অনেক ভালো। কেউ কেউ মনে করে যৌতুক বেশি দিলে স্বামীর নির্যাতন কমে। এ ভুল প্রমাণিত হয়েছে। যত বেশি যৌতুক দেবে, লোভী লোকের লোভ তত বাড়বে, লোভ বাড়লে অত্যাচার বাড়ে। যৌতুকের লোভ সব শ্রেণির পুরুষদের। কপর্দকহীন থেকে কোটিপতির। মেয়েদের এখনও সহযাত্রী, সহকর্মী, সমানাধিকারী, ভাবছে না পুরুষেরা।

এখনও ভাবছে মেয়েরা ঠিক মানুষ নয়, মানুষ হলেও কিছুটা ‘কম মানুষ’। এই দুষ্টচিন্তাটা যতদিন না দূর হবে, ততদিন এই পৃথিবীতে ভুগতে হবে মেয়েদের। মানুষ ছাড়া অন্য কোনও প্রজাতির মধ্যে নারী পুরুষে এরকম বৈষম্য নেই। মানুষ জাতটার লজ্জা হবে কবে?

তসলিমা নাসরিন, লেখক: কলামিস্ট

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল