June 28, 2017, 7:56 am | ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং,বুধবার, সকাল ৭:৫৬

শেষ মুহূর্তে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ে হিলারি-ট্রাম্প

hillary-trumpঢাকা জার্নাল: হোয়াইট হাউসে প্রবেশের জন্য এখন চলছে শেষ মুহূর্তের দৌড়ঝাঁপ। ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন এবং রিপাবলিকান পার্টির ডোনাল্ড ট্রাম্প- দুজনই আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। সাম্প্রতিক জরিপগুলোতে সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে নিউ ইয়র্কের রিয়েল এস্টেট মুঘল ট্রাম্পের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস মিলছে।

নির্বাচিত হলে হিলারি ক্লিনটন হবেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে জনগণের সঙ্গে আছেন হিলারি ক্লিনটন। বাংলাদেশের জনগণের সঙ্গেও তার সম্পর্ক রয়েছে। তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছ থেকে জীবনের এক কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ছেন। হিলারির এক সময়ের এই দাতা ১৮ মাসেরও কম সময় আগে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন।

এই কম সময়ের অভিজ্ঞতায় ৭০ বছরের ট্রাম্প প্রাইমারিতে ১৭ প্রার্থীকে পরাজিত করে রাজনৈতিক বোদ্ধাদের মধ্যে বিস্ময় তৈরি করেছেন। ভুলের প্রান্তসীমায় পৌঁছেও এখন তিনি হিলারির কাছে সামান্য পয়েন্টের ব্যবধানে পিছিয়ে আছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী হিলারি প্রচারাভিযানকে তিনি বিচলিত করে তুলেছেন। হিলারি ক্লিনটনের প্রচারণা শিবির বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ক্যারিশমাটিক বারাক ওবামা’র সমর্থন পাচ্ছে। গত কিছুদিন ধরে তিনি হিলারির জন্য ভোট চাইছেন।

ফ্লোরিডা, নর্থ ক্যারোলিনা, পেনসিলভানিয়া, ওহাইও এবং নিউ হ্যাম্পশায়ারে হাজার হাজার মানুষ ঘণ্টাব্যাপী ওবামা’র বক্তব্য শোনার জন্য অপেক্ষা করেছেন। এসব সমাবেশে ওবামা হিলারির ভূয়সী প্রশংসা করেন।

বারাক ওবামা বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট হিসেবে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে যোগ্য প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন।’

নিজের মন্ত্রিসভার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারিকে ভোট দিতে সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানান ওবামা। একইসঙ্গে ট্রাম্প ভোট না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, হোয়াইট হাউসে তার উত্তরসূরি হিসেবে ট্রাম্প উপযুক্ত নন।

এদিকে সাম্প্রতিক জনমত জরিপগুলোতে দুই প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস দেওয়া হয়েছে। দ্য  ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল/ এনবিসি নিউজের জনমত জরিপে চার পয়েন্ট এগিয়ে আছেন হিলারি ক্লিনটন। এতে ৪৪ শতাংশ মানুষ হিলারির প্রতি সমর্থন দিয়েছেন। আর ট্রাম্পের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন ৪০ শতাংশ মানুষ। ছয় শতাংশ সমর্থন দিয়েছেন লিবার্টারিয়ান পার্টির প্রার্থী গ্যারি জনসন’কে। দুই শতাংশের সমর্থন পেয়েছেন গ্রিন পার্টির প্রার্থী জিল স্টেইন।

পলিটিকো/মর্নিং কনসাল্ট-এর জনমত জরিপে হিলারি ক্লিনটন এগিয়ে রয়েছেন তিন পয়েন্টে। এতে হিলারিকে সমর্থন দিয়েছেন ৪৫ শতাংশ। আর ট্রাম্পকে সমর্থন দিয়েছেন ৪২ শতাংশ।

রিয়েল ক্লিয়ার পলিটিক্স-এর গড় জরিপে ডোনাল্ড ট্রাম্প মাত্র ১ দশমিক ৮ শতাংশ পিছিয়ে আছেন। বিভিন্ন প্রতিবেদনে অনেক রাজ্যে অবস্থান পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেওয়া হচ্ছে। ফলে দুই প্রার্থীকেই শেষ সময় পর্যন্ত বাড়তি প্রচারণা চালিয়ে যেতে হচ্ছে।

গত দুই দিনে গড়ে ছয়টি করে নির্বাচনি সভায় বক্তব্য রেখেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ডেমোক্র্যাটদের থামাতে ঐতিহ্যগতভাবে তাদের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত মিনেসোটা ও কলোরাডোতেও তিনি ভাষণ দিয়েছেন। অন্যদিকে হিলারি ক্লিনটনের প্রচারণা শিবিরের নেতারা মিশিগান ও অ্যারিজোনায় প্রচার চালিয়েছেন। সাম্প্রতি জরিপে মিনেসোটায় ট্রাম্পের উত্থানের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। আর অ্যারিজোনায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

সোমবার রাতে ফিলাডেলফিয়ায় ওবামার সঙ্গে এক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন হিলারি ক্লিনটন। মধ্যরাতে নর্থ ক্যারোলিনা’র রাজধানী রালেগ- এ আয়োজিত র‍্যালিতে তাকে সর্বশেষ নির্বাচনি প্রচারণায় দেখা যাবে। একই সময়ে মিশিগানে অনুষ্ঠিত হবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শেষ র‍্যালি।

ঢাকা জার্নাল, নভেম্বর ০৭, ২০১৬।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল