July 27, 2017, 10:37 pm | ২৭শে জুলাই, ২০১৭ ইং,বৃহস্পতিবার, রাত ১০:৩৭

বললেই দোষ, আদালতের বিরুদ্ধে কিছুই বলবো না

press-club-nazrul-islamঢাকা জার্নাল: আদালের বিরুদ্ধে কিছুই বলবোনা বলেই শুরু করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম। বাকশাল থেকে শুরু। এরপর জিয়াউর রহমানের শাসন, সেনা সমর্থিত ওয়ান ইলেভেনের সরকার। থামেন বর্তমান আওয়ামী লীগসরকারের এসে। বলেন, যা খুশি তাই হবে কোনো যুক্তি, কোনো কিছু বলা যাবে না।

পঞ্চম সংশোধনী বাতিলে উচ্চ আদালতের রায়ে রায়ে জিয়াউর রহমানের শাসন কাল অবৈধ ঘোষণা করা হয়। জিয়াউর রহমানের শাসনকাল অবৈধ ঘোষণা নিয়েই কোনো কথা বলবেন না বলে শুর‍ু করেন নজরুল ইসলাম খান। বিএনপি ছাড়া সব সরকারের বিরুদ্ধে কড়া সমালোচনাও করেন। বর্তমান আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ তোলেন। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

তবে জিয়াউর রহমানের শাসনের প্রশংসা করেন। আর তার শাসন কাল অবৈধ করা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

শনিবার (০৮ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও গ্রেফতারি পরোয়ানার প্রতিবাদে দেশনেত্রী ফোরাম আয়োজিত সভায় এ ক্ষোভ করেন বিএনপির এই নেতা।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, ১৯৭৫ সালের জানুয়ারিতে বাকশাল, একদলীয় শাসন শুরু। গণতন্ত্রকে হত্যা করা হল, সংবাদপত্রের স্বাধীনতা হরণ করা হল, চারটি পত্রিকা সরকারি মালিকানায় রেখে সব পত্রিকা বন্ধ করে দেওয়া হল। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা হরণ করা হল। রাষ্ট্রপতি যখন খুশি কাউকে নিয়োগ করতে পারেবন, যখন খুশি বরখাস্ত করতে পারবেন। এটা কোনো দোষ না, তখন পর্যন্ত শাসন ঠিক আছে।

নজরুল ইসলাম প্রশ্ন রেখে বলেন, শাসন অবৈধ হয়ে গেল কখন? একটা নির্মম হত্যাকাণ্ড হয়ে গেল, হত্যাকাণ্ডের পর যারা দায়িত্ব নিল তখন থেকে। ওই অবৈধ সরকার ১৯৭৮ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন দিল এবং সব রাজনৈতিক দল অংশ নিলতখন। আওয়ামী লীহসহ সবাই। এরপর ১৯৭৯ সালে যখন সংসদ নির্বাচন হলো। সেই সংসদ নির্বাচনে সবাই অংশ গ্রহণ করলো, আওয়ামী লীগসহ। তারা (আওয়ামী লীগ)  ৩৯টি আসনও পেল। সেই সংসদ চলেছে, সেই সংসদের প্রথম অধিবশনে প্রথম দিনই সামরিক শাসন প্রত্যাহার এবং গণতান্ত্রিক পরিবেশে সংসদ অধিবেশন। জনগণের ভোটে নির্বাচিত রাষ্ট্রপতি, সেই সরকার অবৈধ হয়ে গেলো। যারা করলো সেটা কোনো দোষ করে নাই। যা করছে সেটাও দোষ না। তাদের ভিত্তিতে যে করেছে তার (জিয়াউর রহমান) দোষ হয়ে গেলো।

১৯৮৮ সাল পর্যন্ত সংবিধান ঠিক ছিল। ১৯৮৬ সালে যখন নির্বাচন হয় তখন আওয়ামী লীগতো ঠিকই গিয়েছিল। আমরাতো যাইনি। এতো অবৈধ কিছু যুক্ত হয়, সমর্থন করে, পার্টিসিপেট করে যারা, তাদের কোনো দোষ নেই? যা খুশি তাই হবে কোনো যুক্তি, কোনো কিছু বলা যাবে না।

ঢাকা জার্নাল, অক্টোবর ০৮, ২০১৬।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল