March 29, 2017, 1:47 am | ২৮শে মার্চ, ২০১৭ ইং,বুধবার, রাত ১:৪৭

মিউনিখ হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০

munikhঢাকা জার্নাল: জার্মানির দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর মিউনিখের অলিম্পিয়া শপিং সেন্টারে সন্ত্রাসী হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০-এ দাঁড়িয়েছে। শুক্রবার (২২ জুলাই) স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় মিউনিখের এ শপিং সেন্টারে এ হামলা চালায় ইরানি বংশোদ্ভূত এক তরুণ। হামলাকারি তরুণের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত করা যায়নি। হামলায় ৩ জন অংশ নিয়েছে বলে জানানো হলেও পরে পুলিশ বলেছে, ওই তরুণ একাই এ হামলা করেছে।

পুলিশ হিউবার্টাস আন্ড্রেই জানিয়েছেন, হামলাকারী সম্ভবত নিজের গুলিতে প্রাণ হারিয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হামলার দায় কোনো গোষ্ঠী স্বীকার করেনি। পুলিশও হামলায় কারা জড়িত সে সম্পর্কে এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি। হামলায় জড়িত সন্দেহভাজনদের খোঁজে মিউনিখ জুড়ে ব্যাপক অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

ফ্রান্সের পর এবার রক্তাক্ত হলো প্রতিবেশি জার্মানিও। গত ১০ দিনে ফ্রান্স ও জার্মানিতে তিন দফা হামলায় প্রাণ হারায় ৯৪ জন। গত ১৪ জুলাই ফ্রান্সের উপকূলীয় শহর নিসে বাস্তিল দূর্গ পতন দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের ওপর ট্রাক চালিয়ে দিলে মারা যায় ৮৪ জন। তিউনিশিয়ান বংশোদ্ভূত ফ্রান্সের নাগরিককে চিহ্ণিত করেছে দেশটির পুলিশ।

জার্মানিতে গত ৪ দিনের ব্যবধানে এটি দ্বিতীয় হামলা। গত ১৮ জুলাই আফগান এক তরুণ দেশটির বাভারিয়ায় একটি ট্রেনে কুড়াল নিয়ে হামলা চালায়। এতে ট্রেনের ৪ যাত্রী আহত হয়। ঠিক ৪ দিন এবার হামলা মিউনিখের শপিং সেন্টারে।

শপিং সেন্টার থেকে কমপক্ষে ১০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এদের মধ্যে শিশু ও কিশোর রয়েছে। এছাড়া নিহতদের মধ্যে হামলাকারির মৃতদেহও রয়েছে বলেও সন্দেহ করা হচ্ছে। যদিও এ বিষয়ে এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি জার্মান পুলিশ। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ১৬ জন। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর।

প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা ছিল, কমপক্ষে তিন হামলাকারী মিউনিখের ওই শপিংসেন্টারে হামলা চালায়। কিন্তু পরে জানানো হয়, পিস্তল নিয়ে হামলা করেছে ওই তরুণ। হামলার পর সে নিজের মাথায় গুলি করে আত্মহত্যা করে। সন্দেহভাজন হামলাকারীর মৃতদেহটি পাওয়া গেছে অলিম্পিয়া শপিং সেন্টারের প্রায় এক কিলোমিটার দূরের একটি স্থানে। তার সঙ্গে একটি লাল ব্যাকপ্যাক ছিল।  ওই ব্যাকপ্যাকটিতে কোনো বিস্ফোরক আছে কিনা রোবট ব্যবহার করে পুলিশ তা পরীক্ষা করে দেখছে।

এদিকে, হামলার পর শহরের সব যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। শহরের বাসিন্দাদের জনাকীর্ণ এলাকাগুলো এড়িয়ে চলার জন্য পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ। মিউনিখের এক প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে  বিবিসি জানিয়েছে, হামলার পরপরই শহরের সব যানচলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। ফলে অনেকেই তাদের অফিসে আটকে পড়েন। যারা বাড়িতে যেতে পারছেন না, তাদের জরুরি আশ্রয় দিচ্ছেন স্থানীয়রা। টুইটারে ‘খোলা দরজা’ নামে একটি হ্যাশট্যাগও চালু হয়েছে।

মিউনিখ হামলার পর জরুরি বৈঠকে বসছেন জার্মানির কর্তৃপক্ষ। চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গোলা মেরকেলের চিফ অফ স্টাফ পিটার আল্টমেইয়ার বলেছেন, কারা এবং কেন এ হামলা, তা এখনো পরিষ্কার নয়। তিনি আরো বলছেন, ‘এটা সন্ত্রাসী হামলা নয় বলে আমরা উড়িয়েও দিতে পারি না। আবার একে এখনই সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে  নিশ্চিত করে বলতেও পারছি না। তবে এসব বিষয় গুরুত্ব দিয়েই আমরা তদন্ত করছি।’

এই ঘটনার কড়া নিন্দা জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, ব্রিটেন। জার্মানির যেকোনো সঙ্কটে পাশে থাকারও অঙ্গীকার করেছেন এসব দেশের রাষ্ট্র নেতারা।

ঢাকা জার্নাল, ২৩ জুলাই, ২০১৬।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল