July 25, 2017, 12:40 am | ২৪শে জুলাই, ২০১৭ ইং,মঙ্গলবার, রাত ১২:৪০

সতর্ক পাঁচ জেলার পুলিশ

nijamiঢাকা জার্নাল: মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীকে ফাঁসিতে ঝোলানোর প্রস্তুতির পাশাপাশি সতর্ক অবস্থান নিয়েছে ঢাকা, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, নাটোর আর পাবনা জেলার পুলিশ।

নিজামীর ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে  মঙ্গলবার (১০ মে) রাত ১২১০ মিনিটে।

কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সতর্ক থাকার প্রস্তুতি নিতে শুরু করে এসব জেলার পুলিশ।

সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে রায় কার্যকরের পর জামায়াতের আমির মতিউর রহমান নিজামীর মরদেহের গন্তব্য পাবনা জেলার সাঁথিয়া উপজেলার মন্মথপুর গ্রামে। নিজামীর গ্রামের বাড়ি। সেখানে পারিবারিক গোরস্থানে মা বাবার কবরের পাশে দাফনের কথা রয়েছে এই যুদ্ধাপরাধীর।

সেখানকার একটি সূত্র বলেছে, নিজামী নিজেই শেষ আশ্রয় হিসেবে এই স্থানটিকেই বেছে নেওয়ার কথা বলে গেছেন তার স্বজনদের। শেষ ইচ্ছেকে মূল্য দিতে সেখানেও চলছে প্রস্তুতি।

ইতোমধ্যে সাদা পোশাকে পুলিশ ছাড়াও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘিরে রয়েছেন গোরস্থানটি। সাঁথিয়া থানা পুলিশের একটি সূত্র বলেছে, রাতেই তার লাশ গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসা হবে। ভোর রাতের মধ্যেই জানাজার নামাজ ও দাফন সম্পন্ন করা হবে। এর জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও সম্পন্ন করা হয়েছে।

Pabnaএদিকে, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মরদেহের যাত্রা পথের ঢাকা, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, নাটোর আর পাবনা জেলার সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশের কাছেও পৌঁছে বিশেষ বার্তা।

নিজ এলাকার নিরাপত্তা জোরদারের পাশাপাশি নির্বিঘ্ন যাত্রা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নেওয়া হয়েছে প্রশাসনের পক্ষে।

একাধিক জেলার এসপি, সার্কেলের এএসপি, ওসি ও ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সবাই বিশেষ বার্তা প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পুলিশ সুপার জানান, কেবল পুলিশই নয়,  র‌্যাব, হাইওয়ে পুলিশকেও সর্তক রাখা হয়েছে।

‘আমাদের পক্ষ থেকে স্পেশাল সিকিউরিটি এরেঞ্জমেন্ট নেওয়া হয়েছে। সকল স্টেশনগুলোকে এলার্ট করা হয়েছে’ যোগ করেন ঢাকার প্রতিবেশী জেলার একজন পুলিশ কর্মকর্তা।

সেই স্পেশাল সিকিউরিটি এরেঞ্জমেন্টটা ঠিক কেমন?
ধরেন ভিভিআইপি ম্যুভমেন্টের মতো। যুদ্ধাপরাধীর নিজামীর মরদেহ স্কট করে নেওয়া গাড়ির বহর সাই সাই করে গন্তব্যে ছুটবে। কোথাও সেকেন্ডের জন্যেও থামবে না। বাঁধাগ্রস্ত হবে না। সড়কে থাকবে বাড়তি টহল। এভাবেই এক জেলা থেকে আরেক জেলার পথে মরদেহ ‘পাস’ করে দেওয়া হবে বলেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

ঢাকা জার্নাল, মে ১০, ২০১৬

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল