July 27, 2017, 10:40 pm | ২৭শে জুলাই, ২০১৭ ইং,বৃহস্পতিবার, রাত ১০:৪০

অবশেষে ভারতে ফিরলেন দুই ইতালিয়ান মেরিন

india-flag-520x245ঢাকা জার্নাল: দুই ভারতীয় মৎস্যজীবীকে গুলি করে হত্যা করার দায়ে অভিযুক্ত দুজন ইতালীয় নৌসেনা সদস্য শুক্রবার ভারতে ফিরে এসেছেন।

ভারতে তাঁদের বন্দী করা হবে না এবং বিচারে দোষী সাব্যস্ত হলে ইতালিতেই কারাবাস করতে পারবেন – দিল্লীর কূটনীতিকদের কাছ থেকে এই আশ্বাস পাওয়ার পরে রোম থেকে বিশেষ বিমানে ওই দুই নৌসেনা দিল্লিতে পৌঁছেছেন।

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আজকের মধ্যে ওই দুজন – মাসিমিলিয়ান লাতোরে এবং সালভাতোরে জিরোনকে দেশে ফিরে আসার নির্দেশ দিয়েছিল।

দশ দিন ধরে চলা কূটনৈতিক আলাপ আলোচনার মাধ্যমে ভারত ইতালিকে আশ্বাস দেয় যে ওই দুই নৌসেনার বিচার চললেও তাঁদের গ্রেপ্তার করা হবে না বা বিচারে দোষী সাব্যস্ত হলেও মৃত্যুদন্ড দেওয়া হবে না।

ভারত ইতালিকে জানায়, যেহেতু ওই গুলি চালনা অতি বিরল ঘটনা নয়, তাই তাঁদের ফাঁসি হওয়ার সম্ভাবনা নেই৻ ইতালির দূতাবাসেই থাকতে পারবেন তাঁরা, তবে নিয়মিত পুলিশের কাছে হাজিরা দিতে হবে।

একই সঙ্গে ভারত এই মামলাটির বিচারের জন্য একটি বিশেষ ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টও তৈরি হবে৻ ভারতের বিদেশ মন্ত্রী সলমন খুরশিদ সংসদে এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছেন।

ওই আশ্বাস পাওয়ার পরে গতকাল ইতালি সিদ্ধান্ত নেয় যে দুই নৌসেনাকে বিচারের জন্য ভারতে পাঠানো হবে। শুক্রবার বিকেলে ওই দুই নৌসেনা – মাসিমিলিয়ান লাতোরে ও সালভাতোরে জিরোন ইতালীয় বায়ু সেনার বিশেষ বিমানে দিল্লি পৌঁছন।

ভারতের প্রধান বিচারপতির নির্দেশ অনুযায়ী আজকের মধ্যেই দুই অভিযু্ক্ত ইতালীয় নৌসেনার কথা ছিল।

কেরালার উপকূলে আরব সাগরে দুই ভারতীয় মৎস্যজীবীকে গুলি করে হত্যা করার অভিযোগে ওই দুই নৌসেনার বিচার চলছে।

কিন্তু দেশে ভোট দেওয়ার জন্য তাঁরা ছুটির আবেদন করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের কাছে, তা মঞ্জুরও হয়েছিল।

কয়েকদিন আগে হঠাৎই ইতালি জানায় যে ভারতে বিচারের সম্মুখীন হওয়ার জন্য তাঁদের ফিরিয়ে দেওয়া হবে না।

তারপরেই ভারতের সুপ্রিম কোর্ট দিল্লিতে নিযুক্ত ইতালির রাষ্ট্রদূতকে দেশ ছাড়তে নিষেধ করে – কারন তিনিই আদালতের কাছে হলফনামা দিয়ে বলেছিলেন যে দুই নৌসেনা নির্দিষ্ট সময়েই ফিরে আসবেন।

এই ইস্যুতে দুই দেশের মধ্যে প্রায় অভূতপূর্ব এক কূটনৈতিক দ্বন্দ্ব তৈরী হয়েছিল। ইতালি কূটনৈতিক রক্ষাকবচের প্রসঙ্গ তুলেছিল – কিন্তু আদালত বলে যেহেতু রাষ্ট্রদূত নিজেই আদালতে হলফনামা দিয়েছেন, তাই তিনি ভারতের বিচারব্যবস্থার অধীন – সেখানে রক্ষাকবচ কাজ করবে না।

এই দ্বন্দ্ব মেটাতে একটা পর্যায়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নেরও সাহায্য চেয়েছিল ভারত। সূত্র: বিবিসি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল