June 28, 2017, 11:33 am | ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং,বুধবার, সকাল ১১:৩৩

বৌদ্ধ-মুসলিম দাঙ্গায় বার্মায় নিহত ১০

Religious-Warঢাকা জার্নাল: বার্মার মেইকতিলা শহরে বৌদ্ধ ও মুসলমান সম্প্রদায়ের মধ্যে বড়ধরনের দাঙ্গা শুরু হয়েছে।

স্থানীয় একজন সংসদ সদস্য বলেছেন, বৃহস্পতিবারের সহিংসতায় অন্তত ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং কয়েকটি মসজিদের ওপর হামলা ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

তিনি বলছেন, গতবছর দেশের পশ্চিমাঞ্চলে বৌদ্ধ সম্প্রদায় ও রোহিঙ্গা মুসলমানদের মধ্যে ব্যাপক সহিংসতার পর থেকে মেইকতিলা শহরে সংখ্যালঘু মুসলমানদের সঙ্গে সম্পর্কে অবনতি হয়েছে।

শহরের একটি সোনার দোকানে সামান্য বচসা থেকে এই গন্ডগোলের সূত্রপাত – কিন্তু সেই উত্তেজনা খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে, স্থানীয় জনতা প্রধানত মুসলিমদের বাড়িঘরে, এবং কয়েকটি মসজিদেও আগুন ধরিয়ে দেয়।

রাস্তায় দুই সম্প্রদায়ের লোকজনের মধ্যে সরাসরি দাঙ্গা শুরু হয়ে যায়।

মেইকটিলা বার্মার সেই অল্প কয়েকটি শহরের অন্যতম, যেখানে জনসংখ্যার একটা বড় অংশই মুসলিম।

কিন্তু স্থানীয় একজন পার্লামেন্ট সদস্য বলছেন, গত বছর রাখাইন প্রদেশে বৌদ্ধ ও রোহিঙ্গা মুসলিমদের মধ্যে সংঘাত শুরু হওয়ার পর ধেকে মেইকটিলাতেও সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে।

ওই এমপি আরও জানিয়েছেন, আপাতত শহরে দাঙ্গা থেমেছে, কিন্তু মেইকটিলার বিভিন্ন প্রান্তেই বাড়িঘরে এখনও আগুন জ্বলতে দেখা যাচ্ছে।

মুসলিমরা বার্মার মোট জনসংখ্যার পাঁচ শতাংশেরও কম। এর মধ্যে রোহিঙ্গাদেরই সবচেয়ে বেশি রাষ্ট্রীয় নিপীড়নের ও বৈষম্যের শিকার হতে হয়েছে – যদিও সে দেশের অন্য মুসলিমরাও বলে থাকেন তাদেরও প্রতিনিয়ত অন্যায়-অবিচারের শিকার হতে হয়।

সাত মাস আগে রাখাইন প্রদেশে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কারণ অনুসন্ধানে সরকার ইতিমধ্যেই একটি তদন্ত কমিশন নিয়োগ করেছে – কিন্তু তাদের রিপোর্ট নতুন করে হিংসার জন্ম দিতে পারে, এই আশঙ্কায় তারা এখনও তা প্রকাশই করেত পারেনি। সূত্র: বিবিসি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল