July 27, 2017, 10:43 pm | ২৭শে জুলাই, ২০১৭ ইং,বৃহস্পতিবার, রাত ১০:৪৩

নতুন রাষ্ট্রপতি কে হতে পারেন?

bangmapঢাকা জার্নাল: রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান অসুস্থ হয়ে চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পর থেকেই নতুন রাষ্ট্রপতি কে হবেন এ নিয়ে সরকার ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ে ব্যাপক আলোচনা চলছিল।

আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন দেওয়ার বিষয়টি দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার ওপর নির্ভর করছে।

তবে নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে দুজনের নাম আলোচনায় আছে বলে ওই সূত্র বলছে। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী এবং বর্তমান স্পিকার ও অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।এঁদের মধ্যে সাজেদা চৌধুরীর ব্যাপারে দলের শীর্ষ পর্যায়ের আগ্রহ বেশি।

সংবিধানের ৫৪ অনুচ্ছেদ অনুসারে রাষ্ট্রপতির মৃত্যু হলে স্পিকার অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। আবার সংবিধানের ১২৩(২) অনুচ্ছেদ অনুসারে রাষ্ট্রপতি পদ শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে। সে হিসাবে আগামী ১৯ জুনের মধ্যে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন করতে হবে।

সংবিধানের ১২৩ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘মৃত্যু, পদত্যাগ বা অপসারণের ফলে রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হলে পদটি শূন্য হওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে, তাহা পূর্ণ করার জন্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’

রাষ্ট্রপতি সরাসরি ভোটে নয়, সংসদ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত হন। তবে তফসিল ঘোষণাসহ এই নির্বাচন পরিচালনা করে নির্বাচন কমিশন।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্র জানায়, দলের প্রতি অনুগত এবং অঙ্গীকারবদ্ধ এমন কোনো প্রবীণ নেতাকেই এ পদে বসানোর চিন্তাভাবনা হচ্ছে। বিশেষ করে আগামী জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় বর্তমান অস্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশে দলের শীর্ষ পর্যায়ের ওপর বিশ্বস্ত এমন কাউকেই রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়ন দেওয়া হবে বলে দলীয় নীতিনির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে। তা ছাড়া সংবিধান অনুসারে রাষ্ট্রপতি পদে শপথ নেওয়ার পরবর্তী পাঁচ বছর তিনি দায়িত্ব পালন করবেন। সে হিসাবে আওয়ামী লীগ সরকারের শেষ সময়ে এসে নতুন রাষ্ট্রপতির আগামী পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকার বিষয়টিও গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নেওয়া হচ্ছে।

সংবিধানের ৫০(১) অনুসারে রাষ্ট্রপতি কার্যভার গ্রহণের তারিখ থেকে পাঁচ বছরের মেয়াদে তাঁর পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন। তবে শর্ত হচ্ছে, রাষ্ট্রপতি পদের মেয়াদ শেষ হওয়া সত্ত্বেও তাঁর উত্তরাধিকারী কার্যভার গ্রহণ না করা পর্যন্ত তিনি স্বীয় পদে বহাল থাকবেন।

সংবিধান বিশেষজ্ঞ ড. এম জহির জানান, রাষ্ট্রপতি পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকতে পারবেন, যদি না তাঁকে অভিশংসন করা হয়। তবে অভিশংসন করা খুব সহজ নয়।

সংবিধানের ৫২(১) অনুযায়ী, সংবিধান লঙ্ঘন বা গুরুতর অসদাচরণের অভিযোগে রাষ্ট্রপতিকে অভিশংসিত করা যেতে পারে। এ জন্য সংসদের মোট সদস্যের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের স্বাক্ষরে অনুরূপ অভিযোগের বিবরণ লিপিবদ্ধ করে একটি প্রস্তাবের নোটিশ স্পিকারের কাছে প্রদান করতে হবে। স্পিকারের কাছে নোটিশ প্রদানের দিন থেকে ১৪ দিনের আগে বা ৩০ দিনের পর এই প্রস্তাব আলোচিত হতে পারবে না এবং সংসদ অধিবেশন না থাকলে স্পিকার অবিলম্বে সংসদ আহ্বান করবেন।

৫২(৪) অভিযোগ বিবেচনার পর মোট সদস্যসংখ্যার অন্যূন দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে অভিযোগ যথার্থ বলে ঘোষণা করে সংসদ কোনো প্রস্তাব গ্রহণ করলে প্রস্তাব গৃহীত হওয়ার তারিখ থেকে রাষ্ট্রপতির পদ শূন্য হবে।

সূত্র: প্রথম আলো

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল