June 28, 2017, 11:33 am | ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং,বুধবার, সকাল ১১:৩৩

রহস্যময় একটি অনুসন্ধান!

beautiful-woman-sketch-thumb3398054ঢাকা জার্নাল: সবাই বলে নারীর মন নাকি স্বয়ং সৃষ্টিকর্তাও বোঝেন না । আসলেই কি তাই ? আমি যতদূর জানি বেশির ভাগ পুরুষ মানুষ বলবেন হ্যাঁ । In fact সবসময় তাই শুনে এসেছি । কাউকে ১০০% আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলতে শুনিনি যে একটা মেয়েকে বোঝা কোন ব্যাপারই না ।

যাই হোক, প্রশ্নটা নিয়ে আসলে আমরা সবাই সেভাবে হয়ত মাথা ঘামাই না এজন্য এর উত্তরটা জানা তো আরো পরের কথা । সবার জীবন একরকম নয় । এ ব্যাপারটা নিয়ে আমার অনুসন্ধান শুরু হয় একটা ছ্যাকা খাওয়ার পর ।

হঠাত জানার ইচ্ছে জাগে যে, এত কিছু করার পরেও কেন আমাদের মধ্যের ব্যাপারটা কাজ করলো না । শুরু করি এ ব্যাপারে আমার পড়াশোনা । প্রথমে মনোবিজ্ঞান নিয়ে শুরু করলেও ধীরে ধীরে আমি নিজেকে খুঁজে পাই সম্পূর্ণ আলাদা একটি জগতে, যেখানে মোটামোটি নির্ভুল ভাবে এটা প্রমাণ করা হয়েছে যে, নারীর মন রহস্যময় বলে প্রচলিত ধারণা একদমই ভুল একটা ব্যাপার । এটা শুধুই একটা Myth । এ ব্যাপারে আমার অনুসন্ধান আমাকে একটি চরম সত্যের মুখোমুখি করে দেয় । নারীর মন কোন কোন ক্ষেত্রে অংকের থেকেও নির্ভুল ভাবে পড়া সম্ভব , দরকার শুধুমাত্র একটু সচেতনতা । এটুকু সচেতন হলে হয়তবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিকা রুমানা মঞ্জুর আজ সুস্থ্য থাকতেন, হয়তোবা হাসান সাইদ তার বিবাহিত জীবনে উনাকে নিয়ে সুখী জীবন যাপন করতেন। যাই হোক, এসব ব্যাপারে পরে আসা যাবে । কথা না বাড়িয়ে বরং এবার জায়গামত মনোনিবেশ করা যাক । আর একটি শেষ কথা, আমার পুরো অনুসন্ধান বিজ্ঞান নির্ভর । তাই এটাকে একটি বিজ্ঞান অনুসন্ধানি লেখা হিসাবে পড়লে খুশি হবো । আর আমি একদমই লেখালেখি করি না তাই ব্যাকরণগত ব্যাপারে আমার তেমন একটা মাথাব্যাথা নেই । বলা যায় আমার সদ্য আবিস্কৃত তথ্য আমাকে কিছুটা দায়বদ্ধ করে তুলেছে, আর আমার মনে হয়েছে যে অনেকেই এখান থেকে উপকৃত হতে পারে।benqt60_1309925793_5-300px-Pandora

প্রথমেই যে কথা বলতে পারি তা হলো নারীবিদ্বেশিদের জন্য আসলে এ লেখা নয় । কিছু কিছু লোক আছে বিভিন্ন সামাজিক অসংগতির কারণে তাদের মনে নারীর প্রতি একরকমের ঘৃণা বা বিদ্বেশ তৈরি হয়ে যায় । নারীর মন বুঝে তাদের কোন লাভ হবে না বরং তারা পুরো ব্যপারটাকে অন্য দৃষ্টিতে দেখবে যার ফলাফলও বোধহয় ঠিক হবে না । In Fact, আমার প্রথম পর্বের বিষয়বস্তুই হলো আমাদের পুরুষদের মনে নারীর ব্যাপারে একটি জটিলতা নিয়ে । বলা যায় এটা একরকমের Mind Virus . পশ্চিমারা এর নাম দিয়েছেন ম্যাডোনা/হোর কমপ্লেক্স ।

ম্যাডোনা/হোর কমপ্লেক্স
প্রথমেই যা বলেছি যে এটা আসলে সমাজের লিঙ্গ বৈষ্যমের সাইড এফেক্ট হিসাবে মনের ভেতর তৈরি হওয়া এক রকমের ভাইরাস । বর্তমান সমাজের মোটামোটি সব পুরূষ মানুষ এতে আক্রান্ত, তবে আমার নিজস্ব অনুসন্ধান মতে মহিলারাও এর দ্বারা আক্রান্ত ।

উইকিপিডিয়া অনুযায়ী Freudian psychoanalysis, a Madonna–whore complex is a psychological complex that is said to develop in the human male when he sees all women not as individuals, but as either saintly Madonnas or debased prostitute-like personalities.

বাংলায় বলা যায় যে, এই মানসিক জটিলতায় ভোগা পুরুষেরা নারীকে হয় দেবীর আসনে ফেলে দেবে, নয়ত তাকে Whore অথবা বেশ্যা মহিলাদের মত করে দেখবে । মাঝামাঝি কোন অবস্থানে এসব পুরুষ নারীকে দেখতে অভ্যস্ত নয় । তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এই জটিলতা অবচেতন মনের গভীরেই বসবাস করে যায়। ফলাফল হিসাবে ভালোবাসা হালকা খোঁচাতেই সন্দেহে পরিণত হয় আর সৃষ্টি করে প্রচুর জটিলতার । ম্যাডোনা/হোর কমপ্লেক্স এর প্রচুর ব্যাখ্যা আর কারণ আছে । তবে তাদের সবগুলো নিয়ে আমরা আলোচনায় যাবোনা । আমার পরের পর্বে ম্যাডোনা/হোর কমপ্লেক্স কিভাবে পুরুষ এবং নারীর একে অপরকে বোঝার ক্ষেত্রে অথবা তাদের বিশ্বাসের মাঝে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে সেটা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা থাকবে । আশা করি তথ্যগুলো পছন্দ করবেন সবাই ।

ঢাকা জার্নাল: ৯ মার্চ, ২৯১৩

ডক্টর এক্স, ইন্টারনেট ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *



এই পাতার আরো খবর -

জার্নাল